প্রিয় বান্ধবী

প্রিয় বান্ধবী

সুলতানা কামরুজ্জাহান চৌধুরী (এহসান)

প্রতিবন্ধী বিষয়ক কর্মকর্তা প্রতিবন্ধী সেবা ও সাহায্য কেন্দ্র

যাত্রাবাড়ী, ঢাকা।

সিদ্ধেশ্বরী গার্লস কলেজে পরিচয় হয় বৈশাখী ইবনাত (পাওশির) সাথে। সেখানে থেকে শুরু হয় বন্ধুত্বের। কাকতালীয়ভাবে আমাদের বাসা ছিলো বেলী রোডের অফিসার্স কোয়ার্টারে পাশাপাশি। তাই সখ্যতা দিনদিন বেড়েই চলল। একদিকে কলেজে অন্যদিকে প্রতিবেশী হিসেবে আমাদের উভয়ের পরিবারের মধ্যে ছিল অবাধ আসা যাওয়া। অনেক সময় পাওশির বাসায় গেলে হয়তো সে পড়ছে বা আমাকে বলত এহসান তুমি আম্মুর সাথে গল্প কর, আমি পড়ছি অথবা বলতো গান করছি। এমনই ছিল আমাদের হ্নদয়ের সখ্যতা।

আমি বেড়ানো পছন্দ করতাম। কিন্তু পাওশি ছিল শান্ত প্রকৃতির। নিজ জগতে বসবাস করা তার পছন্দের ছিল। চতুষ্পার্শের কোন কালিমাই কখনো তাকে ষ্পর্শ করতে পারতো না। তার পছন্দ ধ্যান-জ্ঞান ছিল গান করা। গানের মাঝেই খুঁজে পেত পৃথিবীর সকল সুখ। কলেজে পড়াকালীণ আমরা বহুবার প্লান করেছি বাইরে কোথাও এক সাথে বেড়াতে যাবো। কিন্তু গানের জন্য পড়ার জন্য তা আর হয়ে ওঠেনি।

পাওশির সব চেয়ে বড় গুণটি যা ছিল তা হলো সে কখনো কারো সমালোচনা করত না, যেন  ব্যাপারটা সে বুঝতোই না। বড় মায়াবী নিষ্কলুষ ছিল পাওশি। সারাক্ষণ মায়ের আচঁল ঘেঁষে-ঘেঁষে চলত। মা-ই যেন তার পৃথিবী। এমন ভালো মানুষ পৃথিবীতে বিরল। আল্লাহ তাকে জান্নাতবাসী করুন এই দোয়া করি।

Leave a Reply